বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

ষষ্ঠ শ্রেণীর বাংলা বিষয়ের পঞ্চম অধ্যায়ের ❝ বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ❞ পাঠের একটি কাজ পড়ে কী বুঝলাম শিরোনামে প্রস্তুত করে শিক্ষকের নিকট জমা দিতে হবে। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক নির্দেশনা অনুযায়ী বাংলা বিষয়ের আলোকে শিক্ষকগণ একটি নমুনা শ্রেণিকক্ষে উপস্থাপন করবেন।

শিক্ষার্থীরা সেই নমুনা অনুসরণ করে তাদের খাতায় বুঝে পড়ি লিখতে শিখি অধ্যায়ের জাহানারা ইমাম রচিত একাত্তরের দিনগুলি রোজনামচাটি পড়ে তারপর পড়ে কী বুঝলাম শিরোনামের তালিকাটি সম্পন্ন করবে।

এক নজরে দেখে নিই- রোজনামচা বলতে কি বুঝি।

প্রতিদিন অনেক ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনা নিজের মতো করে লিখে রাখা যায়। এভাবে লিখে রাখা বিবরণ কে রোজনামচা বলে। রোজনামচা লেখার সময় কয়েকটি বিবরণ খেয়াল রাখতে হবে-

  • ১. শুরুতে তারিখ এবং জায়গার নাম লিখে রাখতে হয়।
  • ২. বর্ণনা পূর্ণবাক্যে লিখতে হয়।
  • ৩. বাক্যে এমন ক্রিয়া শব্দ ব্যবহার করতে হয়, যা দিয়ে বুঝা যায়, কাজটি হয়ে গেছে। যেমন: সকালে সাঁতার কাটলাম। অথবা, সকালে সাঁতার কেটেছি।
  • ৪. ব্যক্তিগত বিবরণের পাশাপাশি ওই দিনে ঘটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের কথাও লেখা যায়।

বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

পড়ে কী বুঝলাম

ক. এটি কোন বিষয় নিয়ে লেখা হয়েছে?একাত্তরের দিনগুলি হলো জাহানারা ইমামের লেখা একটি দিনলিপি। এটি ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে লেখা হয়েছিল। বইটিতে জাহানারা ইমাম তার পরিবারের সদস্যদের সাথে মুক্তিযুদ্ধের সময়ের অভিজ্ঞতা লিপিবদ্ধ করেছেন। তিনি তার স্বামী, ছেলে, মেয়ে এবং অন্যান্য আত্মীয়স্বজনদের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলি বর্ণনা করেছেন। তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দ্বারা চালিত গণহত্যা এবং নির্যাতনের ঘটনাগুলিও বর্ণনা করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের পূর্বকালীন উত্তেজনা, আন্দোলন ও আতঙ্কের বিষয় নিয়ে এই রচনাটি লেখা হয়েছে।
খ. লেখাটি কোন সময়ের ও কয়দিনের ঘটনা?লেখাটি ১৯৭১ সালের মার্চ মাসের মুক্তিযুদ্ধের সময়কার এবং ১৯ মার্চ, ২২ মার্চ ও ২৩ মার্চ এই তিন দিনের ঘটনা।
গ. লেখক কী কী কাজের উল্লেখ করেছেন?লেখক যেসব কাজের উল্লেখ করেছেন সেগুলো হচ্ছে-
১. মেহমানের জন্য নাশতা তৈরি করলেন সারাদিন।
২. বাড়িসুদ্ধ সবাই সকালে ছাদে গিয়ে কালো পতাকার পাশাপাশি আরেকটা বাঁশে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা ওড়ালেন।
৩. সবাই মিলে গাড়িতে করে সারা শহর ঘুরে বেড়ালেন।
৪. শহীদ মিনারে গিয়েছিলেন।
ঘ. লেখার তিন অংশের শুরুতে তারিখ দেওয়া কেন?রোজনামচা লেখার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল তারিখ লেখা।
মুক্তিযুদ্ধের অনেক দিনের ঘটনা নিয়ে লেখক রোজনামচা লিখেছেন। প্রতিদিনের ঘটনায় তিনি তারিখ উল্লেখ করেছেন। এখানে শুধু নির্দিষ্ট তিন দিনের ঘটনা বর্ণনা করেছেন। তাই লেখার তিন অংশের শুরুতে তারিখ উল্লেখ করেছেন।
ঙ. এই লেখা থেকে নতুন কী কী জানতে পারলে?এই লেখা থেকে নতুন যেসব বিষয় জানতে পারলাম তা হলো-
❝একাত্তরের দিনগুলি❞ রচনায় জাহানারা ইমাম বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেছেন। মুক্তিযুদ্ধের প্রাক্কালে সকল শ্রেণী-পেশা ও সকল মানুষ কীভাবে আতঙ্কিত ও উত্তেজিত ছিলেন; কীভাবে ছোট্ট রুমে গাড়ির কাচে স্টিকার লাগিয়ে নিজের আবেগ ও সাহস প্রকাশ করেছে। ২৩ মার্চ যে প্রতিরোধ দিবস এবং শাপলা ফুল যে সংগ্রামী বাংলার প্রতীক তাও এখান থেকে জানতে পেরেছি বিশেষভাবে লক্ষণীয় মনে হয়েছে স্বাধীনতার সংগ্রামে জনমনে বিপুল সাড়া ও উত্তেজনার ঘটনা।
একাত্তরের দিনগুলি রচনাটি থেকে আমরা মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারি। এটি একটি অমূল্য দলিল। এটি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং মূল্যবোধকে স্মরণ করিয়ে দেয়।
বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

একাত্তরের দিনগুলি

এই অংশটি লেখক জাহানারা ইমামের ৭১ এর দিনগুলি নামক বই থেকে নেয়া হয়েছে। লেখক জাহানারা ইমামকে শহীদ জননী বলা হয় কারণ জাহানারা ইমামের পুত্রর রুমি গেরিলা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন এবং শহীদ হয়েছিলেন।

লেখক এর একাত্তরের দিনগুলি লেখায় ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে বাঙ্গালী জাতির উপর হওয়া নির্মম নির্যাতন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে বাঙ্গালী তামাল ছেলেদের সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে অর্জিত মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে।

১৯৭১ সালে ঘটে যাওয়া মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রতিদিনের ইতিহাস বিবরণ সহ এসেছে লেখক এর এই লেখায়। পাঠ শেষে শিক্ষক তোমাদেরকে একাত্তরের দিনগুলির এই অনুচ্ছেদ গুলো পড়ার পর কি বুঝতে পারলে সেটি জানতে চাইবে।

উপরের উত্তরটি ❝ বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ❞ অধ্যায়ের পড়ে কী বুঝলাম এ বিষয়ের আইডিয়া থেকে তুমি নিজের পছন্দ অনুযায়ী নমুনা ফরমেট এর সাহায্যে কাজটি সম্পন্ন করে তোমার শিক্ষকের নিকট জমা দিবে।

বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

এছাড়াও সকল বিষয়ের নমুনা উত্তর সমূহ পাওয়ার জন্য আমাদের ফেসবুক গ্রুপ জয়েন করে নাও ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করো এবং ফেসবুক পেজটি লাইক এবং ফলো করে রাখুন। তোমার বন্ধুকে বিষয়টি জানানোর জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটি তার খাতায় নোট করে দিতে পারো।

আরো দেখুন-

বুঝে পড়ি লিখতে শিখি ও পড়ে কী বুঝলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: এই কনটেন্ট কপি করা যাবেনা! অন্য কোনো উপায়ে কপি করা থেকে বিরত থাকুন!!!