কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম? ষষ্ঠ শ্রেণির প্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, তোমাদের জন্য আজ আলোচনা করব বাংলা বিষয়ের পঞ্চম অধ্যায় বুঝে পড়ি লিখতে শিখি চতুর্থ পরিচ্ছেদের বিশ্লেষণমূলক লেখা কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস এ দেওয়া প্রথম কাজ পড়ে কি বুঝলাম।

এই কাজে শিক্ষক তোমাদেরকে অনুচ্ছেদটি পড়ার পর কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম সে বিষয়ক কয়েকটি প্রশ্ন করবেন। এগুলো তোমরা দলে বিভক্ত হয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করবে।

বিশ্লেষণমূলক লেখা বলতে কী বুঝি?

সব ধরনের লেখায় তথ্য থাকে। উপাত্ত থাকে বিভিন্ন ধরনের ছক, সারণি ও বিবরণের মধ্যে। এসব তথ্য ও উপাত্তকে বিশ্লেষণ করা হয় যেসব লেখায়, সেগুলোকে বিশ্লেষণমূলক লেখা বলে।
বিশ্লেষণমূলক লেখা দুই ধরনের –

  • ১. তথ্য বিশ্লেষণমূলক লেখা ও
  • ২. উপাত্ত বিশ্লেষণমূলক লেখা।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস লেখাটি একটি তথ্য বিশ্লেষণমূলক লেখা। এটি আব্দুল্লাহ আল-মুতীর লেখা। তিনি বিজ্ঞান বিষয়ক লেখক হিসেবে পরিচিত। বিজ্ঞানের অনেক জটিল বিষয়কে তিনি সহজে উপস্থাপন করেছেন।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটি কীটনাশকের সুফল ও কুফল নিয়ে লেখা। কীটনাশক ব্যবহারের ফলে কীটপতঙ্গের সাথে পাখি ও মাছের মৃত্যু শুধু নয় পরিবেশের ও ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

বিবরণের সঙ্গে তথ্যগত মিল রয়েছে। পার্থক্য রয়েছে বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে। এখানে বর্ণনার পাশাপাশি বিষয়ের বিশ্লেষণধর্মিতা প্রাধান্য পেয়েছে। তথ্যমূলক লেখার সঙ্গে মিল খুঁজে পাই তথ্য ও বিষয়ের বর্ণনায়। পার্থক্য হচ্ছে তথ্যমূলক রচনায় বিশ্লেষণ কম থাকে; এক্ষেত্রে বেশি থাকে।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম

কীটপতঙ্গ যে শুধু ক্ষতি করে তা নয়, এরা উদ্ভিদ ও মানুষের নানা উপকারে আসে। আবার ঢালাওভাবে কীটনাশকের ব্যবহারে পরিবেশ ও জীবনের ভারসাম্য নষ্টও হতে পারে।

লক্ষ্যণীয় বিষয় হচ্ছে ক্ষতিকর রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহারের পরিবর্তে অন্যভাবে কীটপতঙ্গ নিধন করা সম্ভব।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম

ক. এই রচনাটি কোন বিষয় নিয়ে লেখা?এই রচনাটি কীটপতঙ্গ ও কীটনাশকের সুফল ও কুফল নিয়ে লেখা।
খ. লেখাটির মধ্যে কী কী বিশ্লেষণ আছে?এই লেখার মধ্য দিয়ে আমি যে বিশ্লেষণগুলো অনুধাবন করতে পেরেছি তা নিম্নরূপ-
১. কীটপতঙ্গ বিশেষ করে মৌমাছি, প্রজাপতি দ্বারা ফুলের পরাগযোগ।
২. ফসলে প্রয়োগকৃত কীটনাশক মানুষের দেহে এবং প্রাণীর মধ্যে বিষক্রিয়া।
৩. কীটনাশক ব্যবহারের ফলে ক্ষতিকর কীটপতঙ্গের গা-সওয়া এবং বংশবিস্তার।
৪. কীটনাশক ব্যবহারে কীটপতঙ্গের সাথে পাখি ও মাছের মৃত্যু এবং পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি।
৫. প্রাকৃতিক উপায়ে কীটপতঙ্গ ধ্বংস।
গ. বিবরণমূলক লেখার সাথে এই লেখাটির কী কী অমিল আছে?আব্দুল্লাহ আল-মুতী রচিত কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস একটি তথ্য বিশ্লেষণমূলক রচনা। বিবরণমূলক লেখার ক্ষেত্রে তথ্যগত মিল রয়েছে। কিন্তু আলোচ্য তথ্য বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে পার্থক্য রয়েছে। এখানে বর্ণনা করার পাশাপাশি সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং বিশ্লেষণধর্মিতার বিষয়টি উঠে এসেছে, যা বর্ণনামূলক রচনায় দেখা যায় না। সাধারণত তথ্য বিশ্লেষণমূলক লেখা নাতিদীর্ঘ হয়।
ঘ. তথ্যমূলক লেখার সাথে এই লেখাটির কী কী অমিল আছে?তথ্যমূলক লেখা সাধারণত তথ্য দ্বারা ভরপুর থাকে। সেখানে মৌলিক বিষয়ের উপর আলোচনা থাকে। বিশ্লেষণমূলক লেখায় তথ্যের বিশ্লেষণ করা হয়, আর তথ্যমূলক লেখায় বিশ্লেষণ কম থাকে।
ঙ. এই লেখা থেকে নতুন কী কী জানতে পারলে?কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস লেখা থেকে আমি অনেক কিছু শিখেছি। আমি কীটপতঙ্গের বিভিন্ন প্রকার, তাদের বৈশিষ্ট্য, এবং তাদের গুরুত্ব সম্পর্কে জানতে পেরেছি। আমি কীটপতঙ্গের পরিবেশগত গুরুত্ব সম্পর্কেও জানতে পেরেছি। আমি কীটপতঙ্গের প্রতি আমাদের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য আহ্বান জানাতে পেরেছি। কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস লেখার কিছু উল্লেখযোগ্য বিষয় হল:
১. আমরা কীটপতঙ্গের প্রতি যত্নশীল হওয়া উচিত।
২. কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
৩. কীটপতঙ্গ আমাদের খাদ্য, ওষুধ, এবং অন্যান্য পণ্য সরবরাহ করে।
৪. কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।
৫. কীটপতঙ্গ গাছের পরাগায়ণে সাহায্য করে।
৬. কীটপতঙ্গ মাটিকে উর্বর করে তোলে।
৭. কীটপতঙ্গ আমাদের খাদ্য chain-এ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
৮. আমরা কীটপতঙ্গদের হত্যা করা উচিত নয়।
৯. আমরা কীটপতঙ্গদের জন্য তাদের প্রাকৃতিক আবাসস্থল তৈরি করে দিতে পারি।
১০. আমরা কীটপতঙ্গদের জন্য খাদ্য এবং জল সরবরাহ করতে পারি।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটিতে কীটপতঙ্গের প্রতি আমাদের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে। কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তাই আমরা তাদের প্রতি যত্নশীল হওয়া উচিত।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ রচনা। এই রচনাটি আমাদের কীটপতঙ্গ সম্পর্কে সচেতন করে তোলে। এই রচনাটি আমাদের কীটপতঙ্গদের প্রতি যত্নশীল হওয়ার জন্য আহ্বান জানায়।
কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস পড়ে কী বুঝলাম

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটিতে কীটপতঙ্গের গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ তারা আমাদের খাদ্য, ওষুধ, এবং অন্যান্য পণ্য সরবরাহ করে। কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশকে পরিষ্কার রাখতেও সাহায্য করে।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটিতে কীটপতঙ্গের বিভিন্ন প্রকার, তাদের বৈশিষ্ট্য, এবং তাদের গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। কীটপতঙ্গের মধ্যে রয়েছে মৌমাছি, পিঁপড়া, উইপোকা, মাছি, মশা, এবং আরও অনেকগুলি। কীটপতঙ্গের মধ্যে কিছু প্রজাতি আমাদের খাদ্য সরবরাহ করে, যেমন মৌমাছি, পিঁপড়া, এবং উইপোকা। কীটপতঙ্গের মধ্যে কিছু প্রজাতি আমাদের ওষুধ সরবরাহ করে, যেমন মাছি এবং মশা। কীটপতঙ্গের মধ্যে কিছু প্রজাতি আমাদের অন্যান্য পণ্য সরবরাহ করে, যেমন রেশম, মধু, এবং মোম।

কীটপতঙ্গের সঙ্গে বসবাস রচনাটিতে কীটপতঙ্গের পরিবেশগত গুরুত্ব সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়েছে। কীটপতঙ্গ আমাদের পরিবেশকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। কীটপতঙ্গ গাছের পরাগায়ণে সাহায্য করে। কীটপতঙ্গ মাটিকে উর্বর করে তোলে। কীটপতঙ্গ আমাদের খাদ্য chain-এ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

লেখক সম্পর্কে জেনে নিই কিছু তথ্য-

আব্দুল্লাহ আল-মুতী ছিলেন একজন বাংলাদেশি বিজ্ঞান লেখক, শিক্ষাবিদ এবং বিজ্ঞান কর্মী। তিনি ১৯৩০ সালের ১লা জানুয়ারি সিরাজগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৯৮ সালের ৩০শে নভেম্বর ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিদ্যায় স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৯৬২ সালে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষায় পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

আব্দুল্লাহ আল-মুতী ১৯৬২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ১৯৮০ সালে অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি লাভ করেন। তিনি ১৯৯২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

আব্দুল্লাহ আল-মুতী বিজ্ঞান বিষয়ে বাংলা ভাষায় অসংখ্য বই লিখেছেন। তার উল্লেখযোগ্য বইগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • বিজ্ঞানের রহস্য
  • বিজ্ঞানের জগৎ
  • বিজ্ঞানের কৌতূহল
  • বিজ্ঞানের জানা অজানা
  • বিজ্ঞানের বিস্ময়

আব্দুল্লাহ আল-মুতী বিজ্ঞান বিষয়ে বাংলা ভাষায় লেখালেখির জন্য ১৯৯৪ সালে ইউনেস্কো কলিঙ্গ পুরস্কার লাভ করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার এবং ১৯৯৮ সালে স্বাধীনতা পদক লাভ করেন।

আব্দুল্লাহ আল-মুতী বিজ্ঞান বিষয়ে বাংলা ভাষায় লেখালেখির মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষকে বিজ্ঞান সম্পর্কে সচেতন করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান লেখার ক্ষেত্রে একজন পথিকৃৎ।

আব্দুল্লাহ আল-মুতীর লেখা বইগুলি বাংলা ভাষায় বিজ্ঞান বিষয়ে লেখালেখির ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক। তার লেখা বইগুলি বাংলাদেশের মানুষকে বিজ্ঞান সম্পর্কে সচেতন করতে এবং বিজ্ঞান শিক্ষাকে জনপ্রিয় করতে সাহায্য করেছে। আব্দুল্লাহ আল-মুতী একজন সত্যিকারের বিজ্ঞান যোদ্ধা ছিলেন। তিনি বিজ্ঞানকে মানুষের কল্যাণে ব্যবহার করার জন্য সর্বদা সচেষ্ট ছিলেন।

অতিরিক্ত তথ্য-

নিজের ভাষায় বিশ্লেষণমূলক লেখা বলতে-

বিশ্লেষণমূলক লেখা হল এমন একটি লেখার ধরন যেখানে আপনি কোনও বিষয়ের উপর আপনার চিন্তাভাবনা এবং যুক্তিগুলিকে বিশ্লেষণ করে প্রকাশ করেন। বিশ্লেষণমূলক লেখায় আপনি একটি বিষয়ের বিভিন্ন দিক বিবেচনা করেন এবং তাদের মধ্যে সম্পর্কগুলি চিহ্নিত করেন। আপনি আপনার নিজের চিন্তাভাবনা এবং যুক্তিগুলি ব্যবহার করে একটি বিষয়ের উপর আপনার নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করেন।

বিশ্লেষণমূলক লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই একটি বিষয় সম্পর্কে ভালভাবে জানতে হবে। আপনাকে বিষয়টির বিভিন্ন দিক সম্পর্কে জানতে হবে এবং তাদের মধ্যে সম্পর্কগুলি চিহ্নিত করতে হবে। আপনাকে আপনার নিজের চিন্তাভাবনা এবং যুক্তিগুলি ব্যবহার করে একটি বিষয়ের উপর আপনার নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করতে হবে।

বিশ্লেষণমূলক লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই একটি পরিষ্কার এবং সংক্ষিপ্ত শৈলীতে লিখতে হবে। আপনার লেখায় আপনাকে বিষয়ের মূল বিষয়গুলিকে তুলে ধরতে হবে এবং আপনার যুক্তিগুলিকে সুস্পষ্টভাবে ব্যাখ্যা করতে হবে।

বিশ্লেষণমূলক লেখা একটি গুরুত্বপূর্ণ দক্ষতা। এটি আপনাকে আপনার চিন্তাভাবনা এবং যুক্তিগুলিকে স্পষ্টভাবে প্রকাশ করতে এবং একটি বিষয়ের উপর আপনার নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করতে সাহায্য করবে।

আরো দেখুন-

এছাড়াও সকল বিষয়ের নমুনা উত্তরসমূহ পাওয়ার জন্য আমাদের ফেসবুক গ্রুপ জয়েন করে নাও, ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করো এবং ফেসবুক পেজটি লাইক এবং ফলো করে রাখো। তোমার বন্ধুকে বিষয়টি জানানোর জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটি তার খাতায় নোট করে দিতে পারো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: এই কনটেন্ট কপি করা যাবেনা! অন্য কোনো উপায়ে কপি করা থেকে বিরত থাকুন!!!